ব্যালন ডি অর কে কতবার পেয়েছে (আপডেট সহ)

পারফরম্যান্সের উপর ভিত্তি করে বিশ্বের সকল ফুটবল খেলোয়াড়দের মধ্যে প্রতিবছর একজনকে ব্যালন ডি অর দেওয়া হয়। তাই অনেকেই জানতে চান ব্যালন ডি অর কে কতবার পেয়েছে।

প্রিয় পাঠক, স্বাগত Dainik Kantha এর আজকের পোস্ট “ব্যালন ডি অর কে কতবার পেয়েছে (আপডেট সহ)” এ।

আজকের এই পোস্টে আমরা ব্যালন ডি অর কি, ব্যালন ডি অর এর যোগ্যতা এবং ব্যালন ডি অর কে কতবার পেয়েছে এসব বিষয়ে বিস্তারিত জানবো।

ব্যালন ডি অর কি

ব্যালন ডি অর হচ্ছে ফুটবল খেলয়ারদের পারফরম্যান্স বিবেচনা সাপেক্ষে সর্বোচ্চ সম্মাননা স্বরূপ একটি পুরষ্কারের নাম।

১৯৫৬ সাল থেকে ব্যালন ডি পুরষ্কার দেওয়া শুরু হয়। ব্যালন ডি অর অর্থ সোনার ফুটবল।

সেই অর্থে অনেকে ব্যালন ডি অর কে সোনার ফুটবল পুরস্কার ও বলে থাকেন।

তবে ব্যালন ডি অর সম্পূর্ণ সোনার তৈরি বল না। এটি পিতলের একটি আয়তাকার পাত এবং তামার সংমিশ্রণে তৈরি করা হয়।

শুধু মাত্র ট্রফিটি পলিশ করার আগে স্বর্ণকার দ্বারা ১৮ ক্যারেটের সোনার দ্রবণে ডুবিয়ে তবেই পলিশ করা হয়।

পলিশ করে সম্পূর্ণ প্রস্তত করার পর একটি ব্যালন ডি অর এর ওজন হয় ৫ কেজি এবং প্রশস্ত হয় ৩১ সেন্টিমিটার।

প্রতি বছর পয়েন্ট অনুযায়ী সেরা খেলোয়াড়কে এই ব্যালন ডি অর পুরষ্কার দেওয়া হয়।কখনো যদি কোনও একাধিক প্লেয়ার একই পয়েন্ট অর্জন করে তখন ফুটবল সাংবাদিকদের জনপ্রিয়তার বিশ্লেষণে সেরা প্লেয়ার বাঁচাই করা হয়।

আরও পড়ুনঃ কে কতবার ফুটবল বিশ্বকাপ নিয়েছে

সেখানেও যদি একাধিক প্লেয়ার সমান গ্রহণযোগ্যতা পায় তাহলে দ্বিতীয় প্লেয়ারকে ব্যালন ডি অর পুরষ্কার প্রদান করা হয়।

একটি ব্যালন ডি অর একজন প্লেয়ারের সর্বোচ্চ সম্মানের। তবে এই ব্যালন ডি অর এর মূল্য তুলনামূলক অনেক কম।

একটি ব্যালন ডি অর এর মূল্য  ২৯২০ মার্কিন ডলার। যা বাংলাদেশি টাকায় মাত্র ৩ লাখ টাকা।

তবে নিঃসন্দেহে এই ব্যালন ডি অর্জন একজন ফুটবল খেলয়ারার জীবনে অন্যতম অর্জন।

এতক্ষণে জানা হয়ে গেছে যে, ব্যালন ডি অর কি এবং কি দিয়ে তৈরি হয় ব্যালন ডি অর।

এছাড়াও জানতে পেরেছেন ব্যালন ডি অর এর আয়তন ওজন।এছাড়াও জেনেছেন ব্যালন ডি অর এর মূল্য কত টাকা বা কত ডলার।

এবার আমরা জানবো ব্যালন ডি অর কে কতবার পেয়েছে তাদের নাম।

ব্যালন ডি অর কে কতবার পেয়েছে

১৯৫৬ সাল থেকে এখন পর্যন্ত মোট ৬৭ বার ব্যালন ডি অর দেওয়া হয়েছে।এর মধ্যে একাধিকবার ব্যালন ডি অর পুরষ্কার পাওয়া প্লেয়ারের সংখ্যাও কম না।

সর্বাধিক ৭ বার ব্যালন ডি অর পেয়ে এই তালিকার শীর্ষে আছেন আর্জেন্টিনার বর্তমান সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় তারকা ফুটবলার লিওনেল মেসি। মেসি এখন পর্যন্ত ৮ বার ব্যালন ডি অর পেয়েছে।

আর পড়ুনঃ কোপা আমেরিকা কাপ কে কতবার নিয়েছে (চ্যাম্পিয়ন লিস্ট আপডেট সহ)

এরপর ৫ বার ব্যালন ডি অর নিয়ে সর্বোচ্চ ব্যালন ডি অর অর্জনের তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে আছে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো।

অনালদ পর্তুগিজ এর একজন তারকা প্লেয়ার। রোনালদো মেসিকে টপকানোর তালিকায় প্রথম আছেন।

তৃতীয় খেলয়ার হিসেবে ফ্রান্সের মিশেল প্লাতিনি তিন বার ব্যালন ডি অর্জন করে সর্বাধিক ব্যালন ডি অর জেতার তালিকায় তৃতীয় স্থানে নাম লিখিয়েছেন।

আরও পড়ুনঃ ফিফা ওয়ার্ল্ড কাপ চ্যাম্পিয়ন লিস্ট

এছাড়া ব্রাজিলের রোনালদো দুই বার ব্যালন ডি অর জিতেছেন।

ব্রাজিলের রোনালদো এই দুইটি ব্যালন ডি অর জিতেন ১৯৯৭ এবং ২০০২ সালে।

এতক্ষণে দেখলাম কোন কোন প্লেয়ার সর্বোচ্চ বার ব্যালন ডি অর জিতেছেন বা অর্জন করেছেন।

এখন আমরা একটি ছকের মাধ্যমে ব্যালন ডি অর পুরষ্কার জেতা সকল প্লেয়ারদের লিস্ট দেখে নেই।

নিচের লিস্ট থেকে স্পস্ত বুঝতে পারবেন কোন দলের হয়ে কোন প্লেয়ার কত সালে ব্যালন ডি অর জিতেছেন।

ব্যালন ডি অর জেতা প্লেয়ারদের তালিকা (শুরু থেকে এই পর্যন্ত)

১৯৫৬ সাল থেকে ২০২৩ সাল পর্যন্ত ব্যালন ডি অর জেতা সকল ফুটবল প্লেয়ারদের তালিকা নিচে দেওয়া হলোঃ

সালপ্লেয়ারদেশ – ক্লাব
2023লিওনেল মেসিইন্টার মিয়ামি
2022করিম বেনজেমাফ্রান্স – রিয়াল মাদ্রিদ
2021লিওনেল মেসিআর্জেন্টিনা – পিএসজি
2020পুরস্কার দেয়া হয় নিকরোনায় স্থগিত ছিলো
2019লিওনেল মেসিআর্জেন্টিনা – বার্সেলোনা
2018লুকা মদ্রিচক্রোয়েশিয়া –
রিয়াল মাদ্রিদ
2017ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোপর্তুগাল – রিয়াল মাদ্রিদ
2016ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোপর্তুগাল – রিয়াল মাদ্রিদ
2015লিওনেল মেসিআর্জেন্টিনা – বার্সেলোনা
1014ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোপর্তুগাল – রিয়াল মাদ্রিদ
2013ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোপর্তুগাল – রিয়াল মাদ্রিদ
2012লিওনেল মেসিআর্জেন্টিনা – বার্সেলোনা
2011লিওনেল মেসিআর্জেন্টিনা – বার্সেলোনা
2010লিওনেল মেসিআর্জেন্টিনা – বার্সেলোনা
2009লিওনেল মেসিআর্জেন্টিনা – বার্সেলোনা
2008ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোপর্তুগাল – ম্যানইউ
2007কাকাব্রাজিল – মিলান
2006ফ্যাবিও ক্যানাভারোইতালি – রিয়াল মাদ্রিদ
2005রোনালদিনহোব্রাজিল – বার্সেলোনা
2004আন্দ্রে শেভচেঙ্কোইউক্রেইন – মিলন
2003পাভেল নেদভেদচেক রিপাবলিক –
জুভেন্টাস
2002রোনালদোব্রাজিল – রিয়াল মাদ্রিদ
2001মাইকেল ওয়েনইংল্যান্ড – লিভারপুল
2000লুইস ফিগোপর্তুগাল – রিয়াল মাদ্রিদ
1999রিভালদোব্রাজিল – বার্সেলোনা
1998জিনেদিন জিদানফ্রান্স – জুভেন্টাস
1997রোনালদোব্রাজিল – ইন্টারজিওনাল
1996ম্যাথিয়াস সামেরজার্মানি –
বরুসিয়া ডর্টমুন্ড
1995জর্জ ওয়েহলাইবেরিয়া – মিলান
1994রিস্টো স্টইচকভবুলগেরিয়া – বার্সেলোনা
1993রবার্তো ব্যাজিওইতালি – বার্সেলোনা
1992মার্কো ভ্যান বাস্তেননেদারল্যান্ডস – মিলান
1991জিন-পিয়েরে পাপিনফ্রান্স – মার্সেই
1990লোথার ম্যাথিউসজার্মানি – ইন্টারজিওনাল
1989মার্কো ভ্যান বাস্তেননেদারল্যান্ডস -মিলান
1988মার্কো ভ্যান বাস্তেননেদারল্যান্ডস – মিলান
1987রুড গুলিটনেদারল্যান্ডস – মিলান
1986ইগোর বেলানভসোভিয়েত ইউনিয়ন-
ডায়নামো কিয়েভ
1985মিশেল প্লাতিনিফ্রান্স – জুভেন্টাস
1984মিশেল প্লাতিনিফ্রান্স – জুভেন্টাস
1983মিশেল প্লাতিনিফ্রান্স – জুভেন্টাস
1982পাওলো রসিইতালি – জুভেন্টাস
1981,
1980
কার্ল হেইঞ্জ রুমেনিগেওয়েস্ট জার্মানি –
বায়ার্ন মিউনিখ
1979,
1978
কেভিন কেগানইংল্যান্ড
1977অ্যালান সিমোনসেনডেনমার্ক –
বরুসিয়া এম’গ্লাডব্যাক
1976ফ্র্যাঞ্জ বেকেনবাওয়ারজার্মানি – বায়ার্ন মিউনিখ
1975ওলেগ ব্লোকহাইনসোভিয়েত ইউনিয়ন –
ডায়নামো কিয়েভ
1974,
1973
ইয়োহান ক্রুইফনেদারল্যান্ডস – বার্সেলোনা
1972ফ্র্যাঞ্জ বেকেনবাওয়ারজার্মানি – বায়ার্ন মিউনিখ
1971ইয়োহান ক্রুইফনেদারল্যান্ডস – আয়াক্স
1970গার্ড মুলারজার্মানি – বায়ার্ন মিউনিখ
1969গিয়ানি রিভেরাইতালি – মিলান
1968জর্জ বেস্টনর্দান আয়ারল্যান্ড – ম্যানইউ
1967ফ্লোরিয়ান অ্যালবার্টহাঙ্গেরি – Ferencv rosi TC
1966ববি চার্লটনইংল্যান্ড – ম্যানইউ
1965ইউসেবিওপর্তুগাল – বেনফিকা
1964ডেনিস লস্কটল্যান্ড – ম্যানইউ
1963লেভ ইয়াশিনসোভিয়েত ইউনিয়ন –
ডায়নামো মস্কো
1962জোসেফ মাসোপুস্টচেক প্রজাতন্ত্র – ডুকলা প্রাগ
1961ওমর সিভোরিইতালি – জুভেন্টাস
1960লুইস সুয়ারেজস্পেন – বার্সেলোনা
1959আলফ্রেডো ডি স্টিফানোস্পেন – রিয়াল মাদ্রিদ
1958রেমন্ড কোপাফ্রান্স – রিয়াল মাদ্রিদ
1957আলফ্রেডো ডি স্টিফানোস্পেন – রিয়াল মাদ্রিদ
1956স্ট্যানলি ম্যাথিউসইংল্যান্ড – ব্লাকপুল
কে কতবার পেয়েছে ব্যালন ডি অর

ব্যালন ডি অর সম্পর্কিত কিছু তথ্য

ব্যালন ডি অর এর প্রথম নাম ছিলও কোপা আমেরিকা ব্যালন ডি অর। পরবর্তীতে নামকরণ করা হলও ফিফা ব্যালন ডি অর।

এরপর ফিফা থেকে ফ্রান্স আলাদা হয়ে যাওয়ার পরে এর নাম হয় শুধু মাত্র ব্যালন ডি অর।

একটি ব্যালন ডি অর র আর্থিক মূল্য অনেক কম।

তবে এর দ্বারা প্রাপ্প সম্মান একজন প্লেয়ারের কাছে রীতিমত সোনার হরিনের মতো সম্মান।

এই ব্যালন ডি অর এর দ্বারা প্লেয়ারের মেধা প্রকাশিত হয় বললেও ভুল হবে না।

ব্যালন ডি অর সম্পর্কিত FAQS

মেসি ব্যালন ডি অর কয়টি?

মেসি ব্যালন ডি অর ৭ টি। এবং মেসি সর্বোচ্চ ব্যালন ডি অর প্রাপ্ত প্লেয়ার।

নেইমার ব্যালন ডি’অর কয়টি ?

এখন পর্যন্ত ২ বার ব্যালন ডি এর জন্য নাম আসলেও একই পয়েন্টে অন্যজন পেয়ে যায়।

তবে ফুটবল তারকাদের মতে খুব তারাতারি ব্যালন ডি অর পাবেন ব্রাজিলিয়ান তারকা নেইমার।

কত বছর পর পর ব্যালন ডি অর দেয়া হয়?

১৯৫৬ সাল থেকে প্রত্যেক বছর সার্বিক দিক বিবেচনায় সেরা ফুটবল প্লেয়ারকে ব্যালন ডি অর দেওয়া হয়।

2022 সালের ব্যালন ডি অর কে পেয়েছে?

2022 সালের ব্যালন ডি অর পেয়েছেন করিম মোস্তফা বেনজেমা যাকে সবাই করিম বেনজেমা বলেই চিনে। তিনি ফ্রান্সের নাগরিক।

নেইমার কি সর্বকালের সেরা ফুটবলার?

এই প্রশ্নের জবাবে দানি আলভেস বলেন, “নেইমার হচ্ছে সময়ের সেরা ফুটবলার, তবে মেসি সর্বকালের সেরা ফুটবলার”।

নেইমার কোন জাতি?

নেইমার একজন ব্রাজিলিয়ান ফুটবল তারকা।

ব্যালন ডি অর ২০২৩ রেংকিং কিভাবে দেখতে পাবো?

এই পোস্টেই ফুটবল ইতিহাসে ১৯৫৬ থেকে শুরু করে সর্বশেষ ব্যালন ডি অর রেংকিং এবং আপডেট তালিকা দেখতে পাবেন।

ব্যালন ডি অর কে কতবার পেয়েছে তা নিয়ে সর্বশেষ

আজকের পোষ্টে আমরা ব্যালন ডি অর কে কতবার পেয়েছে তা জেনেছি। জেনেছি ব্যালন ডি অর এর মূল্য কত।

জেনেছি ব্যালন ডি অর তালিকা ১৯৫৬ থেকে ২০২২ পর্যন্ত।

এছাড়াও জেনেছি ব্যালন ডি অর কি দিয়ে তৈরি। এবং ব্যালন ডি অর এর ওজন এবং আয়তন কত।

ব্যালন ডি অর কে কতবার পেয়েছে তাদের দলের নাম, ক্লাবের নাম, এবং ব্যলন ডি অর জয়ের সাল জেনেছি।

আপডেটঃ ব্যালন ডি অর পেয়েছে আর্জেন্টিনা অধিনায়ক লিওনেল মেসি (সর্বশেষ প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী ২০২৩ এ)

আশা করছি এই পোষ্টের মাধ্যমে ব্যালন ডি অর সম্পর্কিত সকল তথ্য জানতে পেরেছেন।

ফুটবল সহ খেলাধুলা সম্পর্কিত আমাদের অন্যান্য সকল পোস্ট পড়তে Sports Category ভিজিট করুন।

চোখ রাখুন আমাদের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ Dainikkantha এ।

10 thoughts on “ব্যালন ডি অর কে কতবার পেয়েছে (আপডেট সহ)”

Leave a Comment

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.